Bhaifonta with Nandan : ভাইফোঁটা হিন্দুদের একটি উৎসব। এই উৎসবের পোষাকি নাম ভ্রাতৃদ্বিতীয়া অনুষ্ঠান। কার্তিক মাসের শুক্লাদ্বিতীয়া তিথিতে (কালীপূজার দুই দিন পরে) এই উৎসব অনুষ্ঠিত হয়। বাঙালি হিন্দু পঞ্জিকা অনুযায়ী, এই উৎসব কার্তিক মাসের শুক্লপক্ষের ২য় দিনে উদযাপিত হয়। মাঝেমধ্যে এটি শুক্লপক্ষের ১ম দিনেও উদযাপিত হয়ে থাকে। নেপালে ও পশ্চিমবঙ্গের দার্জিলিং পার্বত্য অঞ্চলে এই উৎসব পরিচিত ভাইটিকা নামে। সেখানে বিজয়াদশমীর পর এটিই সবচেয়ে বড় উৎসব। আর এই উপলক্ষে আমাদের ক্যাম্পেইন, ” Bhaifonta with Nandan” ।

এই উৎসবের আরও একটি নাম হল যমদ্বিতীয়া। কথিত আছে, এই দিন মৃত্যুর দেবতা যম তার বোন যমুনার হাতে ফোঁটা নিয়েছিলেন। অন্য মতে, নরকাসুর নামে এক দৈত্যকে বধ করার পর যখন কৃষ্ণ তার বোন সুভদ্রার কাছে আসেন, তখন সুভদ্রা তার কপালে ফোঁটা দিয়ে তাকে মিষ্টি খেতে দেন। সেই থেকে ভাইফোঁটা উৎসবের প্রচলন হয়। ভাইফোঁটার দিন বোনেরা তাদের ভাইদের কপালে চন্দনের ফোঁটা পরিয়ে দিয়ে ছড়া কেটে বলে-

“ ভাইয়ের কপালে দিলাম ফোঁটা, যমের দুয়ারে পড়ল কাঁটা।
যমুনা দেয় যমকে ফোঁটা, আমি দিই আমার ভাইকে ফোঁটা।
যমুনার হাতে ফোঁটা খেয়ে যম হল অমর।
আমার হাতে ফোঁটা খেয়ে আমার ভাই হোক অমর।
এইভাবে বোনেরা ভাইয়ের দীর্ঘজীবন কামনা করে। তারপর ভাইকে মিষ্টি খাওয়ায়। ভাইও বোনকে কিছু উপহার বা টাকা দেয়।

অনেক সময় এই ছড়াটি বিভিন্ন পরিবারের রীতিনীতিভেদে পরিবর্তিত হয়ে থাকে। অতঃপর, বোন তার ভাইএর মাথায় ধান এবং দুর্বা ঘাসের শীষ রাখে। এই সময় শঙ্খ বাজানো হয় এবং হিন্দু নারীরা উলুধ্বনি করেন। এরপর বোন তার ভাইকে আশীর্বাদ করে থাকে (যদি বোন তার ভাইয়ের তুলনায় বড় হয় অন্যথায় বোন ভাইকে প্রণাম করে আর ভাই বোনকে আশীর্বাদ করে থাকে)। তারপর বোন ঐতিহ্যবাহী মিষ্টি দ্বারা ভাইকে মিষ্টিমুখ করায় এবং উপহার দিয়ে থাকে। ভাইও তার সাধ্যমত উক্ত বোনকে উপহার দিয়ে থাকে।

পশ্চিমবঙ্গে ভাইফোঁটা একটি ঘরোয়া অনুষ্ঠান হলেও ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্যে দিয়ে পালিত হয়। নানা রকমের খাবার অনুষ্ঠানের জন্য তৈরি করার রেওয়াজ আছে, সাথে বোনের জন্য দাদা বা ভাইয়ের মিষ্টি গিফট।
তো একটা সন্ধ্যে হয়ে যাক ভাইফোঁটার দিনে।

“নন্দন”, আপনাদের সবসময়ের সবচেয়ে বিশ্বস্ত নিরামিষ খাবার এবং ইতালীয় কন্টিনেন্টাল খাবারের সেরা ঠিকানা, আবারও দু-হাত এগিয়ে আপনাদের স্বাগত জানাচ্ছে আবারও আমাদের রেস্টুরেন্টে। উৎসবের এই আনন্দের সময়ে সপরিবারে আসুন আমাদের ঠিকানায়; আর এক উৎকৃষ্ট পরিবেশে সুস্বাদু খাবারের সাথে আপনার স্পেশাল সময়টিকে উপভোগ করুন।

উৎসবের এই আনন্দের দিনে নন্দন নিয়ে এসেছে আপনাদের পছন্দের সমস্ত খাবারের সম্ভার। সময়ের সাথে সাথে পরিস্থিতির গুরুত্ব বুঝে, আমরা “নন্দন”- এর পক্ষ থেকে নিয়ে এসেছি নিরামিষ খাবারের এক বিশাল সম্ভার; যেখানে আপনি পনির থেকে মাশরুম, এক ছাদের নিচে এক app – এ, এক সাইটে পেয়ে যাবেন বিভিন্ন সুস্বাদু খাবার একদম সুলভে। তো হয়ে যাক Bhaifonta with Nandan।

Leave a Reply

Your email address will not be published.